May 21, 2024 7:33 am
চেন্নাইকে

৩ বলে ১৯ রান দিয়ে চেন্নাইকে ডুবালেন ফিজ

Advertisement

৩ বলে ১৯ রান দিয়ে চেন্নাইকে ডুবালেন ফিজ!
একটি ক্রিকেট খেলায়, লখনউয়ের দলের একেবারে শেষ রাউন্ডে জিততে 17 পয়েন্ট প্রয়োজন। চেন্নাই থেকে দলের অধিনায়ক মুস্তাফিজুর রহমান নামের একজন অভিজ্ঞ খেলোয়াড়ের হাতে বল দেন। কিন্তু মার্কাস স্টয়নিস নামের একজন খেলোয়াড় বলটি সত্যিই দারুণভাবে হিট করেন এবং মুস্তাফিজুরের হয়ে মাত্র ৩ টার্নে খেলা শেষ করেন। একজন খেলোয়াড়কে আউট করে এবং তার প্রথম টার্নে মাত্র 4 পয়েন্ট দিয়ে শুরুতে মুস্তাফিজুর সত্যিই ভাল করেছিলেন।

শেষ ৬ বলে জয়ের জন্য দলের প্রয়োজন ছিল ১৭ রান। ক্রিজে ছিলেন শক্তিশালী ব্যাটসম্যান স্টোইনিস। চেন্নাইয়ে তাদের দলের জন্য উল্লাস করছিল জনতা। মুস্তাফিজের নায়ক হওয়ার সুযোগ ছিল। প্রথম বলেই ছক্কা হাঁকান স্টয়নিস, এরপর দুটি চার। তৃতীয় বলটি ছিল নো বল। স্টোইনিস ফ্রি হিটে আরও চার রান করেন, যা লখনউকে রোমাঞ্চকর জয়ের দিকে নিয়ে যায়।

তিন দিন আগে লখনউ তাদের প্রথম খেলায় চেন্নাইয়ের বিপক্ষে ৮ উইকেটে জিতেছিল। এইবার, রিম্যাচে, চেন্নাই সত্যিই ভাল শুরু করেছিল আধিক রুতুরাজ গায়কওয়াদ এবং শিবম ডাবের ব্যাটিং সত্যিই ভাল। শেষ পর্যন্ত গায়কওয়াদ 108 রান করেন এবং দুবে আউট না হয়ে 66 রান করেন।

Advertisement

চেন্নাই সাধারণত ঘরের মাঠে ভালো খেলে, কিন্তু তারা এই খেলায় শুরুটা শক্তিশালী করেনি। রাহানে প্রথম ওভারে মাত্র ৪ রান দিলেও গায়কওয়াদ ও মিচেল দলকে এগিয়ে রাখার চেষ্টা করেন। যাইহোক, আউট হওয়ার আগে গায়কোয়াড় মাত্র 11 রান করেন।

জিম্বাবুয়ে সিরিজের দল ঘোষণা, সুযোগ পেলো যারা
যদিও মিচেল-গায়কওয়াদ এবং রবীন্দ্র জাদেজা-গায়কোয়াড় দুজনেই পঞ্চাশ রান করেছিলেন, চেন্নাই দলের অধিনায়কই সবচেয়ে বেশি প্রভাব ফেলেছিলেন। জাদেজা তার ইনিংসে মাত্র ১৬ রান করেন। গায়কওয়াদ ভালো খেলেন এবং উইকেট পড়ার সময় দলকে সাহায্য করতে একপ্রান্তে থেকে যান। তারপর শিবম দুবে তার সাথে যোগ দেন এবং আক্রমণাত্মকভাবে খেলেন, মাত্র 22 বলে হাফ সেঞ্চুরি করেন। শেষ ওভারে আউট হওয়ার আগে দুবে ২৭ বলে ৩ চার ও ৭ ছক্কায় ৬৬ রান করেন।

অন্য দলে, চেন্নাইয়ের অধিনায়ক খেলা চলাকালীন আউট হননি। তিনি 56 বলে 100 রান করেন। গায়কওয়াদ নামে অন্য একজন খেলোয়াড়ও 100 রান করেন এবং আইপিএলে দ্বিতীয় সর্বকনিষ্ঠ অধিনায়ক হন। 60 বলে 12 চার ও 3 ছক্কায় 108 রান করেন গায়কওয়াদ। তারপর, মহেন্দ্র সিং ধোনি ব্যাট করতে আসেন কিন্তু মাত্র একটি বল মারতে পারেন, যেটি দিয়ে তিনি একটি বাউন্ডারি করেন। খেলা চলাকালীন লখনউয়ের খেলোয়াড় ম্যাট হেনরি, মহসিন খান এবং যশ ঠাকুর প্রত্যেকে একটি করে উইকেট নেন।

চেন্নাইয়ে একটি ক্রিকেট ম্যাচে ঘরের দল জয়ের জন্য 211 রান করার চেষ্টা করছিল। ঘরের দলের দুই ফাস্ট বোলার পাথিরানা ও মুস্তাফিজ অন্য দলকে রান করা থেকে বিরত রাখতে দারুণ কাজ করেছিলেন। অন্য দল, লখনউ, জয়ের জন্য কঠিন সময় ছিল। তারা খেলার শুরুটা ভালো করেনি।

কুইন্টন ডি কক কোনো রান করেননি। অধিনায়ক কেএল রাহুলকে বেশিক্ষণ খেলতে দেননি মুস্তাফিজ। রাহুল ১৪ বলে ১৬ রান করেন। তারপর, খেলার প্রধান খেলোয়াড় হয়ে ওঠেন স্টয়নিস। কার্যত দলকে হারের হাত থেকে বাঁচিয়েছেন তিনি। 100 রানের নিখুঁত স্কোরও করেন তিনি। তার সঙ্গে নিকোলাস পুরান ও দীপক হুডাও খেলছিলেন। পুরান 15 বলে 34 রান করেন এবং হুডা খুব শক্তিশালী খেলা খেলেন এবং 17 রান করেন।

কিন্তু শেষ কয়েক রাউন্ড যদি মানুষকে সত্যিই নার্ভাস না করে তবে আগের লড়াইগুলির কোনটিই পার্থক্য করতে পারত না।

Advertisement
Advertisement