July 24, 2024 2:18 pm
#image_title

ব্রেকিং:যে কারনে তাসকিনকে সহঅধিনায়ক থেকে বাদ দেয়া হলো

ব্রেকিং:যে কারনে তাসকিনকে সহঅধিনায়ক থেকে বাদ দেয়া হলো।সবাই জানত যে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ দলে কোনো অপ্রত্যাশিত খেলোয়াড় থাকবে না। প্রধান নির্বাচক এবং অন্য দুই নির্বাচক তাদের পছন্দ নিয়ে কাউকে অবাক করেনি। তবে সবচেয়ে বড় আলোচনার বিষয় ছিল ১৫ সদস্যের দল থেকে অলরাউন্ডার মোহাম্মদ সাইফুদ্দিনকে বাদ দেওয়া। অনেকে মনে করেন তাকে ছেড়ে দেওয়াটা ভুল ছিল। দল ঘোষণার সংবাদ সম্মেলনে সাইফুদ্দিন লক্ষণীয়ভাবে অনুপস্থিত ছিলেন।

বিশ্বকাপ দলের জন্য খেলোয়াড় বাছাইয়ের দায়িত্বে থাকা ব্যক্তি কাউকে দলে অন্তর্ভুক্ত করবেন কি না তা নিয়ে অনিশ্চিত ছিলেন। তাসকিন আহমেদের ইনজুরিতে কিছুটা শঙ্কা থাকলেও সামগ্রিকভাবে দল ভালো অবস্থায় আছে বলে মনে হচ্ছে। কিছু লোক মনে করে যে প্রশ্নবিদ্ধ খেলোয়াড় ছাড়াই দলটি আরও ভাল, অন্যরা মনে করেন যে তাদের অন্তর্ভুক্ত করা হলে এটি আরও ভাল হবে।

বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগে এবং জাতীয় দলের হয়ে খেলায় ভালো পারফরম্যান্সের কারণে সাইফুদ্দিন অলরাউন্ডার হিসেবে বিশ্বকাপের জন্য দলে থাকার যোগ্য। তার ব্যাটিং এবং বোলিং উভয় ক্ষেত্রেই অভিজ্ঞতা রয়েছে এবং নির্বাচকরা তাকে 2019 ওডিআই বিশ্বকাপ এবং 2021 টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের জন্য বেছে নিয়েছিলেন। বিশ্বকাপের জন্য আন্তর্জাতিক ক্রিকেট কাউন্সিলের কাছে জমা দেওয়া ১৫ জন খেলোয়াড়ের একজন সাইফুদ্দিন, কিন্তু শেষ পর্যন্ত তাসকিনের ইনজুরির কারণে বাদ পড়েন। বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের প্রধান চিকিৎসকের মতে, চোট কাটিয়ে উঠতে তাসকিনের কয়েক সপ্তাহ সময় লাগতে পারে।

তাই যুক্তরাষ্ট্রে শ্রীলঙ্কা ও দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে ম্যাচে খেলতে পারবেন না তাসকিন। তাসকিনের পরিবর্তে খেলবেন তানজিম সাকিব। সোমবার শেষ মুহূর্তে তানজিমের পরিবর্তে সাইফুদ্দিনকে দলে নেওয়া হয়। লিপু বলেন, শ্রীলঙ্কা সিরিজে তারা তানজিমকে ভালো খেলতে দেখেছেন।

খেলার সময় তার মনোযোগ এবং কঠোর পরিশ্রম তাকে সাইফুদ্দিনের চেয়ে একটু ভালো করে তুলেছিল। আমরা মূলত সাইফুদ্দিনকে চূড়ান্ত ওভারে ইয়র্কার বোলিং করার দক্ষতার জন্য বিবেচনা করছিলাম, কিন্তু আন্তর্জাতিক খেলায় এই দক্ষতা যেভাবে ব্যবহার করা হয় তা স্থানীয় খেলায় যেভাবে ব্যবহার করা হয়েছিল তার থেকে ভিন্ন। তাই আমরা টিম লাইনআপে পরিবর্তন করার সিদ্ধান্ত নিয়েছি। 30 তারিখে আমরা যে দল ঘোষণা করেছিলাম তা থেকে আমরা একমাত্র পরিবর্তন করেছি তানজিমের জন্য সাইফুদ্দিনকে সরিয়ে দেওয়া। সাইফুদ্দিন না তানজিমকে দলে অন্তর্ভুক্ত করা হবে তা নিয়ে আমাদের মধ্যে মতানৈক্য ছিল।

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র এবং ওয়েস্ট ইন্ডিজের খেলার অবস্থার কারণে চারজন ফাস্ট বোলার এবং চারজন স্পিনার নিয়ে বিশ্বকাপ দল বেছে নেওয়া হয়েছিল। লিপু ব্যাখ্যা করেছেন যে সাকিব আল হাসান এবং তানভীর ইসলাম সহ দুই বাঁহাতি স্পিনার থাকা নেদারল্যান্ডস এবং নেপালের বিপক্ষে ম্যাচের জন্য একটি কৌশলগত সিদ্ধান্ত ছিল। নির্বাচক আব্দুর রাজ্জাক বিশ্বাস করেন যে ওয়েস্ট ইন্ডিজে স্পিনাররা ভালো পারফরম্যান্স করে, বিশেষ করে ড্রপ-ইন পিচে এবং কন্ডিশন দলের গঠন নির্ধারণে বড় ভূমিকা পালন করে।

অতিরিক্ত বোলার হয়ে দলকে সাহায্য করতে চান সৌম্য সরকার। নাজমুল হোসেন শান্ত ও লিটন কুমার দাসের মতো কয়েকজন ব্যাটসম্যান যথেষ্ট রান না করায় চিন্তিত নির্বাচকরা। লিটন ভালো না খেললেও নির্বাচকরা তার সম্ভাবনায় বিশ্বাসী এবং তাকে তার দক্ষতা বাড়াতে সাহায্য করছেন।

বিশ্বকাপ দলের জন্য নির্বাচিত ক্রিকেটারদের সবাই বয়স্ক এবং দীর্ঘদিন ধরে একসঙ্গে খেলেছেন। মিনহাজুল আবেদিন নান্নু তাদের অভিজ্ঞতার কারণে যুক্তরাষ্ট্র ও ওয়েস্ট ইন্ডিজে অনুষ্ঠিতব্য টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে ভালো করবে বলে আশাবাদী। তিনি মনে করেন দলটি শক্তিশালী, তবে তিনি বিশ্বাস করেন যে সেখানে মাত্র দুজনের পরিবর্তে তিনজন নতুন খেলোয়াড়ের জায়গা থাকতে পারত। সৈকত লীগে ভালো পারফর্ম করা মোসাদ্দেক হোসেন প্রয়োজনে ভালো বিকল্প হতে পারতেন বলেও মনে করেন তিনি।

আগের টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে বাংলাদেশ ভালো না করলেও আসন্ন টুর্নামেন্টে উন্নতির আশা আছে। দলটি বিশ্বাস করে যে তারা শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে তাদের প্রথম ম্যাচে জিততে পারে, যা তাদের বাকি টুর্নামেন্টের জন্য আত্মবিশ্বাস দেবে। দক্ষিণ আফ্রিকার মতো শক্তিশালী দলকেও হারানোর সুযোগ আছে বলেও মনে করেন তারা। সাফল্যের চাবিকাঠি হবে দলের উন্নয়ন ও ঐক্য। কিছু বিশেষজ্ঞ মনে করেন যে ব্যাটিং এবং বোলিংয়ের মধ্যে ভারসাম্য বাড়াতে নির্দিষ্ট কিছু খেলোয়াড়কে দলে অন্তর্ভুক্ত করা উচিত ছিল। সব মিলিয়ে আসন্ন টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে বাংলাদেশের পারফরম্যান্স নিয়ে আশাবাদ রয়েছে।