July 17, 2024 2:54 pm

ব্যাটিং বিপর্যয়ের ম্যাচে ভালো বোলিং ও ফিল্ডিংয় দিয়ে সুপার এইট নিশ্চিত করল বাংলাদেশ

ব্যাটিং বিপর্যয়ের ম্যাচে ভালো বোলিং ও ফিল্ডিংয় দিয়ে সুপার এইট নিশ্চিত করল বাংলাদেশ।আজ ঈদুল আজহা নামে একটি বিশেষ দিন। বাংলাদেশ ক্রিকেট দল নেপালের বিপক্ষে ম্যাচ জিতে তাদের ভক্তদের দারুণ খুশি করেছে। তারা এখন সুপার এইট নামক পরের রাউন্ডে যাবে। তাদের কোচ চন্ডিকা হাথুরুসিংহে এবং তার দল তাদের পারফরম্যান্সে খুব গর্বিত।

বাংলাদেশ প্রথমে খেলে অলআউট হওয়ার আগে 106 রান করে। এরপর নেপাল ব্যাট করলেও অলআউট হওয়ার আগে মাত্র ৮৫ রান করতে সক্ষম হয়। বাংলাদেশের পক্ষে সর্বোচ্চ ১৭ রান করেন সাকিব আল হাসান।

জেতার চেষ্টায় কঠিন সময় পার করছে নেপাল। খেলার শুরুতে তানজিম হাসান সাকিব সত্যিই ভালো করছেন। তৃতীয় ওভারে তানজিম সাকিব নেপালের একজন খেলোয়াড়কে দারুণ বল করে আউট করেন। খেলোয়াড় বল মারতে না পেরে আউট হয়ে যান।

তানজিম সাকিব তাকে ফেরানোর আগে অনিল শাহ মাত্র একটি বল খেলেন। তিনি বলটি আঘাত করার চেষ্টা করলেও মিড অফে নাজমুল হোসেন শান্ত ক্যাচ দেন। মাত্র ২ বল খেলে আউট হন অনিল।

তার পরের মোড়ে আরেক খেলোয়াড়কে আউট করেন তানজিম সাকিব। চতুর্থ রাউন্ডের দ্বিতীয় বলটি রোহিতের বলে বাউন্ডারির ​​দিকে মারলেও ব্যাকওয়ার্ড পয়েন্টে ক্যাচ দেন রিশাদ হোসেন। ৬ বলে মাত্র ১ রান করেন রোহিত।

পাওয়ার প্লের শেষ ওভারে বল করার সময় তানজিম সাকিবের সঙ্গে উইকেট পার্টিতে যোগ দেন মুস্তাফিজুর রহমান। আসিফ বলটি আঘাত করার চেষ্টা করলেও তানজিম তা ধরে ফেলেন এবং 17 রান করে মাঠ ছাড়তে হয় আসিফকে।

তানজিম সাকিব খেলার প্রথম ৭ রাউন্ডে ৪ রাউন্ড পর বোলিং শেষ করেন। তার করা শেষ বলে সন্দীপ জোরাকে আউট করেন, রিশাদ হোসেন বলে ক্যাচ দেন। তানজিম সাকিব তার 4 ওভারে মাত্র 7 রান দিয়েছেন এবং 4 উইকেট নিয়েছেন, যা বিশ্বকাপে সবচেয়ে কম রান দেওয়ার ক্ষেত্রে বাংলাদেশি বোলারের সেরা পারফরম্যান্স।

নেপাল ক্রিকেট খেলায় ভালো করছিল না, কিন্তু তখন কুশল মাল্লা এবং দীপেন্দ্র সিং আইরে তাদের দলকে সাহায্য করার চেষ্টা করেছিল। তারা ভালো কাজ করছিল, কিন্তু তারপরে কুশলকে খেলা এবং আরও রান করা থেকে বিরত রাখেন মুস্তাফিজ।

এর পরে, ইদি তাকে সাহায্য করার জন্য একজন সতীর্থ খোঁজার চেষ্টা করেছিলেন, কিন্তু কেউ তার সাথে ভাল খেলতে পারেনি। শেষ পর্যন্ত ৩১ বলে ২৫ রান করেন ইদি। নেপালের শেষ স্কোর ছিল ৮৫ রান।

বাংলাদেশের পক্ষে সেরা বোলার তানজিম সাকিব ৪ ওভারে মাত্র ৭ রান দিয়ে ৪ উইকেট নেন। আরেক দুর্দান্ত বোলার মুস্তাফিজুর রহমানও ৪ ওভারে ৭ রানে ৩ উইকেট নিয়ে ভালো করেছেন। এছাড়া সাকিব পেয়েছেন ২ উইকেট।

এর আগে ক্রিকেট খেলায় বাংলাদেশের প্রথম খেলোয়াড় প্রথম বলেই আউট হন। আরেক খেলোয়াড় তানজিম তামিমও কোনো রান না করে দ্রুত আউট হয়ে যান। নাজমুল হোসেন শান্ত তিন নম্বরে ব্যাট করতে আসলেও কোনো রান করতে পারেননি। মাত্র ৫ বল মোকাবেলা করে ৪ রান করে আউট হন তিনি।

লিটন দাস খেলায় বেশিক্ষণ থাকতে পারেননি। অফ স্টাম্পের বাইরে রান তুলতে গিয়ে বল বাতাসে মারেন তিনি। উইকেটের পেছনে বল সহজে ক্যাচ দেন আসিফ শেখ। লিটন ১২ বলে এক চারে ১০ রান করেন। লিটন আউট হওয়ার পর তাওহিদ হৃদয়ও ভালো করতে পারেননি।