May 21, 2024 7:09 am

বাংলাদেশকে জ্বলে ডুবিয়ে জিম্বাবুয়ের ম্যাচ জয়

Advertisement

বাংলাদেশকে জ্বলে ডুবিয়ে জিম্বাবুয়ের ম্যাচ জয়।
জিম্বাবুয়ে একটি ক্রিকেট ম্যাচে বাংলাদেশের বিপক্ষে ৮ উইকেটে জিতেছে, তাদের সব খেলায় জয় থেকে বিরত রেখেছে। বাংলাদেশের চেয়ে বেশি রান করে জিম্বাবুয়ে সিরিজ জিতে নেয় ৪-১ ব্যবধানে।

১৫৮ রানে ক্যাচ দিতে গিয়ে ভালো শুরু করেন বেনেট। তিনি যখন মাত্র 4 রান পেয়েছিলেন তখন তিনি কিছুটা আটকে গিয়েছিলেন, কিন্তু তারপরে তিনি সত্যিই ভাল করতে শুরু করেছিলেন। শেখ মেহেদি পরপর দুটি ছক্কা ও একটি চার মেরে ১৬ রান পান। এরপরের ওভারে ১৪ রান পান সাইফুদ্দিন। অন্য দল মাত্র 38 রান পায় এবং মাত্র 4 ওভারে আউট হয়।

পঞ্চম ইনিংসে সাকিবের হাতে ক্যাচ আউট হয়ে গেলে জিম্বাবুয়ে তাদের প্রথম খেলোয়াড় তাদিয়োনশে মারুমানিকে হারায়। এটা একটা বড় আশ্চর্য ছিল না কারণ বেনেট-রাজা ভালো খেলছিল এবং খেলায় নেতৃত্ব দিচ্ছিল। কিং যেতে কিছু সময় নিয়েছিল, কিন্তু বেনেট গতি বজায় রেখেছিল। একজন কম ফাস্ট বোলার দিয়ে তাদের ওপর যথেষ্ট চাপ দিতে পারেনি বাংলাদেশ। টি-টোয়েন্টিতে তার প্রথম পঞ্চাশ রান করার পরও, বেনেট আরও রান করতে থাকেন। স্বাগতিক দলের জয়ের সম্ভাবনা ধীরে ধীরে ম্লান হয়ে যায় কারণ বেনেট সাইফুদ্দিনকে ৪৯ বলে ৫ ছক্কা ও চারে মারেন। খেলার শেষ পর্যন্ত ম্যাচের নিয়ন্ত্রণ ছিল জিম্বাবুয়ের হাতে।

Advertisement

অধিনায়ক রাজা এবং জোনাথন ক্যাম্পবেল একসাথে খেলা শেষ করেন। জিম্বাবুয়ে অধিনায়ক, যিনি অন্য খেলায় ভালো করতে পারেননি, শেষ ম্যাচে ৬টি চার ও ৪টি ছক্কায় ৭২ রান করেন।

সকালে কয়েন টসে বাংলাদেশ জিততে পারেনি, তবে খেলা শুরু করেছিল তারা। গত ম্যাচে সত্যিই ভালো খেলেন তানজিদ হাসান তামিম এবারও তেমন ভালো করতে পারেননি। ব্লেসিং মুজারাবানির হাতে ধরা পড়ার আগে তিনি মাত্র ২ রান করেন। সৌম্য সরকার শুরুতে ছক্কা হাঁকালেও ভালো কাজটা ধরে রাখতে পারেননি। ৭ বলে ৭ রান করে আউট হন তিনি।

চট্টগ্রামে প্রথম তিন ম্যাচে দলকে জিততে সাহায্য করা তাওহিদ হৃদয় ঢাকায় এসেছিলেন। কিন্তু এই ম্যাচে তিনি কোনো রান করেননি। বল মারতে গিয়ে বেনেটের হাতে ক্যাচ আউট হন তিনি।

কঠিন পরিস্থিতিতেও পরপর তিনটি চার মারেন মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ। তিনি এবং তার সঙ্গীর শুরুটা খারাপ ছিল কিন্তু মাহমুদউল্লাহ দলের হয়ে রান তুলতে থাকেন। শান্তারও একটা ঘনিষ্ঠ কল ছিল যখন সে প্রায় আউট হয়ে গিয়েছিল কিন্তু খেলায় থাকতে পেরেছিল।

কিন্তু আজও খুব বেশি রান করতে পারেননি। ওয়েলিংটন বড় শট মেরে ফিল্ডারের হাতে ধরা পড়েন। ২৮ বলে ৩৬ রান করেন তিনি। সাকিব আল হাসান ও মাহমুদউল্লাহ একসঙ্গে ব্যাট করে ৩৯ রান যোগ করলেও তা করতে কিছুটা সময় লেগেছে। ৩৯ রান করতে তাদের লেগেছিল ৩৩ বল। ১৭ বলে ২১ রান করে আউট হন সাকিব। এরপর মাহমুদউল্লাহ ৪৪ বলে ৫৪ রান করেন, যার মধ্যে মাত্র ২০ বলে ৩১ রান।

জাকের আলী জিম্বাবুয়ের বোলারদের বিপক্ষে সত্যিই ভালো করেছেন। তিনি মাত্র 11 বলে 24 রান করেন, যা বাংলাদেশকে মোট 150 রানে পৌঁছাতে সাহায্য করে। তবে, বেনেট-রাজারা বলেছেন যে খেলা জিততে তাদের আরও রান দরকার।

Advertisement
Advertisement