July 17, 2024 2:59 pm

প্রথম খেলাতেই বাংলাদেশকে যেভাবে চমকে দিলো যুক্তরাষ্ট্র

প্রথম খেলাতেই বাংলাদেশকে যেভাবে চমকে দিলো যুক্তরাষ্ট্র।শেষ ওভারে জয়ের জন্য দরকার ছিল ৯ রান। বাংলাদেশ দল ভেবেছিল তারা হারতে যাচ্ছে। কিন্তু তারপরে, কোরি অ্যান্ডারসন একটি বড় শট মারেন এবং তারপরে হরমিত সিং মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের হয়ে খেলা জেতার জন্য আরেকটি আঘাত করেন। এটি তাদের জন্য একটি বড় এবং অপ্রত্যাশিত জয় ছিল।

মঙ্গলবার হিউস্টনে যুক্তরাষ্ট্রের বিপক্ষে ক্রিকেটে মাঠে নামে বাংলাদেশ। ব্যাট করতে নেমে সুযোগ ফুরিয়ে যাওয়ার আগেই বাংলাদেশ ১৫৩ রান করে। খেলা জিততে যুক্তরাষ্ট্রের দরকার ছিল মাত্র ৩ বল বাকি থাকতে ৫ উইকেট।

বাংলাদেশের বি’পক্ষে খেলার আগে যু”ক্তরাষ্ট্র মাত্র 25 টি-টো’য়েন্টি ম্যাচ খেলেছে! সম্প্রতি খেলা শুরু করা দলের কাছে হেরে যাওয়া নাজমুল হোসেন শান্তর দক্ষতা নিয়ে সন্দেহ তৈরি করছে। নির্ভীশের বাজে ব্যাটিং দলের জন্য বড় ক্ষতির কারণ হয়ে দাঁড়ায়।

কোরি এবং হারমিট অল্প সময়ের মধ্যে প্রচুর রান করার জন্য একসাথে কাজ করেছিলেন, যা তাদের দলকে খেলা জিততে সাহায্য করেছিল। হারমিত বলটি সত্যিই ভাল হিট করে 33 রান করেন, যেখানে কোরি 34 রান করেন। এটি মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র দলের জন্য সর্বকালের সেরা জুটি যখন তারা খেলা হারছিল।

ইউএসএ তাদের ক্রিকেট ম্যাচে শক্তিশালী শুরু করলেও বাংলাদেশ পাল্টা লড়াই করে শুরুতেই উইকেট তুলে নেয়। যাইহোক, USA হাল ছেড়ে দেয়নি এবং তাদের দ্বিতীয় ব্যাটারদের সাথে লড়াই করে। অবশেষে, বাংলাদেশ তাদের গতি ভঙ্গ করতে সক্ষম হয় এবং মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের একজন ব্যাটারকে ত্রাণ শিবিরে ফেরত পাঠাতে সক্ষম হয়। এই ধাক্কা সত্ত্বেও, ইউএসএ-এর ব্যাটাররা রান করতে থাকে, গাউস আউট হওয়ার আগে 23 রান করে। বাংলাদেশের মুস্তাফিজুর রহমান আরও তিনটি উইকেট নিয়ে ইউএসএ দলকে চাপে ফেলেন। যাইহোক, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের অ্যান্ডারসন এবং হারমিত এগিয়ে গিয়ে ম্যাচের নিয়ন্ত্রণ নেন। বাংলাদেশের পক্ষে সবচেয়ে সফল বোলার ছিলেন মুস্তাফিজুর, ২ উইকেট নেন এবং মাত্র ৪১ রান দেন।

এর আগে, প্রথম ব্যাটসম্যানদের কেউ ভালো না করার পর, তাওহীদ হৃদয়ের দুর্দান্ত ব্যাটিংয়ে বাংলাদেশ 150 রানের বেশি করে। তাওহীদ হৃদয় ৪৭ বলে ৪ চার ও ২ ছক্কায় ৫৮ রান করেন। আরেক খেলোয়াড় জাকের আলী 5 বলে 9 রান করেন এবং এখনও তাওহীদ নিয়ে খেলছিলেন।

বাংলাদেশের প্রথম দুই ব্যাটস লিটন দাস এবং সৌম্য সরকার খুব একটা অভিজ্ঞ দলের বিপক্ষে খুব একটা ভালো খেলছিল না। লিটনের খেলায় থাকার দুটি সুযোগ ছিল, কিন্তু তারপরও খুব একটা ভালো করতে পারেননি তিনি। আউট হওয়ার আগে তিনি 15 বলে 14 রান এবং 27 বলে 34 রান করেছিলেন।

লিটন ফিরে আসার পর, সৌম্য আউট হওয়ার আগে মাত্র একটি বল খেলার সুযোগ পান। ১৩ বলে ২০ রান করেন তিনি। পাওয়ার প্লেতে বাংলাদেশ মাত্র ৩৭ রান করেছে এবং ২ উইকেট হারিয়েছে।

দুই খেলোয়াড় খেলা ছাড়ার পর তাওহীদে যোগ দেন অধিনায়ক নাজমুল হোসেন শান্ত। তিনি খুব একটা ভালো খেলতে পারেননি এবং ছাড়ার আগে ১১ বলে মাত্র ৩ রান করেন। এরপর সাকিব আল হাসান ব্যাট করতে আসলেও বিদায়ের আগে মাত্র ৬ রান করেন।

শান্ত-সাকিব চলে গেলে বাংলাদেশ দলের ভালো খেলা চালিয়ে যেতে হবে। তাওহীদ ও মাহমুদউল্লাহ একসঙ্গে কাজ করে ৪৭ বলে ৬৭ রান করেন। ২২ বলে ৩১ রান করে বিদায় নেন মাহমুদউল্লাহ। এরপর তাওহীদ ও জাকের খেলা শেষ করে।

যুক্তরাষ্ট্রের পক্ষে স্টিভেন টেলর ২টি এবং সৌরভ-জেসি সিং একটি করে উইকেট নেন।

বাংলাদেশের র‌্যাঙ্কিং যুক্তরাষ্ট্রের চেয়ে বেশি হলেও বিশ্বকাপের ঠিক আগে যুক্তরাষ্ট্রের কাছে বড় খেলায় হেরে মন খারাপ করে তারা।