রানআউট করেও কেন উইকেট পালোনা অস্ট্রেলিয়া!

ওয়েস্ট ইন্ডিজকে টি-টোয়েন্টি সিরিজে হারিয়েছে অস্ট্রেলিয়া। তবে ক্যারিবীয়দের হারের ব্যবধানটা আরেকটু বেশি হতে পারত। শেষ উইকেটে আলজারি জোসেফ ক্রিজে ঢোকার আগেই রান-আউট করেছিলেন অজি অলরাউন্ডার স্পেন্সার জনসন। তবে তারা আবেদন না করায় আম্পায়ার আউট দেননি। ম্যাচের ১৯তম

ওভারে নাটকীয় এই ঘটনা ঘটে। কাভারে বল ঠেলে সিঙ্গেল নিতে যান আলজারি জোসেফ। তিনি নন-স্ট্রাইক প্রান্তে পৌঁছানোর আগেই সেখানে থাকা ফিল্ডারের থ্রো পেয়ে স্টাম্প উপড়ে দেন জনসন। টিভি রিপ্লেতে দেখা যায় যে, উইন্ডিজ ক্রিকেটার তখন ক্রিজের বাইরে ছিলেন। ফলে ক্রিকেটের মৌলিক নিয়ম অনুসারেই তার

আউট হওয়ার কথা। কিন্তু এরপর দেখা মেলে চমকপ্রদ এক দৃশ্যের। আম্পায়ার জেরার্ড অ্যাবুড সেই আউটের সিদ্ধান্ত যাছাইয়ের জন্য থার্ড আম্পায়ারের কাছেই পাঠাননি। মূলত ক্রিকেটের আইন অনুসারেই তিনি এই কাজটি করেছেন। ক্রিকেটের আইন বলে, ‘আবেদন কার্যকর হতে গেলে বোলারের রানআপ শুরুর আগেই করতে হবে, যদি রানআপ না থাকে, তাহলে পরের বল

করার অ্যাকশনে যাওয়ার আগেই আবেদন করতে হবে। (আবেদন করতে হবে) টাইম কল করার আগেই।’ কিন্তু অজি ক্রিকেটাররা নিশ্চিত আউট ধরে নিয়ে হয়তো আর আবেদন জানাননি। মোটকথা খালি চোখে আউট দেখা গেলেও অবশ্যই আবেদন করতে হবে আম্পায়ারদের কাছে। এটি ক্রিকেটের মৌলিক নিয়মগুলোর

একটি। এমসিসির ক্রিকেট আইনের ৩১.১ নম্বর ধারায় বলা হয়েছে, ‘আইনের মধ্যে থেকে কোনো ব্যাটার আউট হলেও কোনো ফিল্ডার যদি আবেদন না করেন, তাহলে কোনো আম্পায়ারই তাকে আউট দেবেন না।’ এ ঘটনার পর অ্যাবুড এসে স্টাম্প ঠিক করে পরের বলের জন্য প্রস্তুতি নিতে শুরু করেন। তা দেখে সে সময়ই তার পাশে জড়ো হতে

থাকেন অস্ট্রেলিয়ানরা। সে সময় তাকে বলতে শোনা যায়, ‘কোনো আবেদন হয়নি।’ যদিও টিম ডেভিড এসে অ্যাবুডকে বলার চেষ্টা করেছেন যে তিনি আবেদন করেছেন। তবে সেটি নাকচ করে দিয়ে খেলা চালিয়ে যেতে বলেন অ্যাবুড। এক পর্যায়ে আম্পায়ারের সঙ্গে ক্রিকেটারদের উত্তপ্ত বাক্য বিনিময় হতে থাকলে বাধা দেন অজি অধিনায়ক মিচেল

মার্শ। এরপর যথারীতি নির্ধারিত ২০ ওভারের খেলাই সম্পন্ন হয়ে যায়। ৯ উইকেট হারিয়ে ক্যারিবীয়রা তোলে ২০৭ রান। এর আগে গ্লেন ম্যাক্সওয়েলের বিধ্বংসী রেকর্ডগড়া সেঞ্চুরিতে ৪ উইকেটে ২৪১ রানের বিশাল সংগ্রহ গড়ে অজিরা। ৩৪ রানে জিতে স্বাগতিকরা সিরিজ নিশ্চিত করেছে। সূত্রঃ ঢাকা পোস্ট

Spread the love

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *