1. Mijankhan298@gmail.com : Mijankhan :
  2. msthoney406@gmail.com : ২৪ ঘন্টা খবর : ২৪ ঘন্টা খবর
খেলোয়াড়দের মতো আমাদেরও সমর্থন দরকার - ২৪ ঘন্টা খেলার খবর!
সর্বশেষ:
অবাক ক্রিকেটবিশ্ব, ২০২৩ সালের ওয়ানডে বিশ্বকাপ থেকে বাদ পড়ছে দক্ষিণ আফ্রিকা প্লেয়ার্স ড্রাফটে পর এবার সরাসরি চুক্তিতে এই ভয়ংকর লেগ স্পিনার দলে নিল ঢাকা ডমিনেটর্স অবশেষে নতুন চমক দিয়ে বাংলাদেশের বিপক্ষে দল ঘোষণা করলো নিউজিল্যান্ড সুখবর দিলেন নেইমার নকআউটের স্বপ্ন টিকিয়ে রাখল জার্মানি ‘বিশ্বকাপ ব্যর্থতার জন্য আইপিএল দায়ী নয়’ কাতার বিশ্বকাপের শেষ ষোলো নিশ্চিত করতে সুইজারল্যান্ডের মুখোমুখি হতে না হতেই অতীতের রেকর্ড নিয়ে চরম দুশ্চিন্তায় ব্রাজিল ১ নজরে দেখেনিন গ্রুপ পর্বের শেষ ম্যাচে পোল্যান্ডের বিপক্ষে ড্র করেও যেভাবে নক আউট পর্ব নিশ্চিত করতে পারে মেসির আর্জেন্টিনা শফিকুলের শেষ ওভারের নাটকীয় ৬ রানের জয়ে সাউথ জোনকে হারিয়ে চ্যাম্পিয়ন মাহমুদউল্লাহ নর্থ জোন সাকিবের দুর্দান্ত বোলিংয়ের পরও টানা হারের স্বাদ পেলো বাংলা টাইগার্স

খেলোয়াড়দের মতো আমাদেরও সমর্থন দরকার

  • আপডেট করা হয়েছে: রবিবার, ১১ সেপ্টেম্বর, ২০২২
  • ১৪০ বার পঠিত:

এবার এশিয়া কাপে বাংলাদেশ দল বিদায় নিয়েছে সবার আগে। তবে আজ দুবাইয়ের ফাইনালে বাংলাদেশেরও উপস্থিতি থাকছে। সেটি মাসুদুর রহমান মুকুলের সৌজন্যে। মাঠের আম্পায়ার হিসেবে ভারতের

অনিল চৌধুরীর সঙ্গে থাকছেন বাংলাদেশের মুকুলও। গতকাল দুবাই থেকে ফোনে মুকুল আজকের পত্রিকাকে বললেন এশিয়া কাপে নিজের অভিজ্ঞতা ও দেশের আম্পায়ারিং নিয়ে অনেক কিছুই। সাক্ষাৎকার নিয়েছেন রানা আব্বাস

প্রশ্ন: এশিয়া কাপের ফাইনালে আপনার সৌজন্যে বাংলাদেশের প্রতিনিধিত্ব থাকছে। এটা তো দেশের আম্পায়ারিং ইতিহাসেই গুরুত্বপূর্ণ এক ঘটনা।

মাসুদুর রহমান মুকুল: হ্যাঁ, মনি ভাই (এনামুল হক), (শরফুদ্দৌলা) সৈকতদের কাছ থেকে যেটা শুনেছি, এশিয়া কাপের মতো বড় টুর্নামেন্টের ফাইনালে প্রথম কোনো বাংলাদেশি আম্পায়ার আম্পায়ারিং করতে যাচ্ছে। বাংলাদেশের খেলা সব সময়ই খেলোয়াড়কেন্দ্রিক। সে যে খেলাই হোক। আমরাও যে দেশের পতাকা বহন করি, এটা অনেকের মনে আসত না। ওই ধারা থেকে

একটু হলেও আমরা বেরিয়ে আসতে পারছি। এটা আমাদের কাছে অনেক বড় তৃপ্তির। অনেকে এখন বুঝতে শুরু করেছে, আম্পায়াররাও এখন বাংলাদেশের প্রতিনিধিত্ব করে, পতাকা বহন করে। আন্তর্জাতিক আম্পায়ারিংয়ে এখন আমরা সুন্দর একটা সময় পার করছি। এটা ধরে রাখতে হবে। আমরা যত ভালো করব, বিশ্ব জানবে বাংলাদেশের আম্পায়ারদের মান অনেক ভালো, তাদের সামর্থ্য আছে যেকোনো ম্যাচ পরিচালনার।

প্রশ্ন: সব মিলিয়ে এশিয়া কাপে আপনার অভিজ্ঞতা কেমন?
মুকুল: ভালো। আমরা যেখানে কাজ করি, আমরা খুব একটা আলোচনায় আসি না। সব সময়ই নেতিবাচক খবর, সমালোচনার মধ্যে থাকি। বলতে পারেন, অনেক দিনের চেষ্টায় হঠাৎ একটা ভালো ফল পাচ্ছি। ভালো প্ল্যাটফর্ম পেয়েছি। সবচেয়ে বড় কথা, সুযোগগুলো এখনো পর্যন্ত কাজে লাগিয়েছি। বাংলাদেশের আম্পায়ারদের জন্য অবশ্যই ভালো একটা প্ল্যাটফর্ম তৈরি হচ্ছে।

প্রশ্ন: এখনো পর্যন্ত সবচেয়ে কঠিন পরীক্ষা দিতে হয়েছে কোন ম্যাচে?
মুকুল: এখনো পর্যন্ত প্রথম ভারত-পাকিস্তান ম্যাচটা আমার কাছে একটু কঠিন মনে হয়েছে। আগে ভারত-পাকিস্তান ম্যাচ কখনোই করিনি। বিশেষ করে ভারতের ম্যাচ। এত দর্শকের মধ্যে একটু চাপ অনুভব করেছি প্রথম ম্যাচে। চ্যালেঞ্জ যদি কিছু থেকে থাকে সেটা নয়েজ। প্রচুর দর্শকের শব্দ বা আওয়াজ। এত হইচই, আওয়াজের মধ্যে কখনো ম্যাচ পরিচালনা করিনি।

প্রশ্ন: প্রথম ভারত-পাকিস্তান ম্যাচে রোহিত শর্মার সঙ্গে অনেক কথা হচ্ছিল আপনার। আপনার সিদ্ধান্ত নিয়েই কি তর্ক করছিলেন ভারতীয় অধিনায়ক?
মুকুল: তর্ক ঠিক নয়। বাইরে থেকে এটা মনে হতে পারে। আসলে এত শব্দের মধ্যে আমরা দুজন নিজেদের কথা ঠিকঠাক শুনতে পাচ্ছিলাম না। স্নায়ুক্ষয়ী মুহূর্তে ওর তাড়াহুড়া ছিল। একজন আরেকজনের কথা ঠিকমতো শুনতে পারছিলাম না, এই আর কী।

প্রশ্ন: দেশে আন্তর্জাতিক ম্যাচে আম্পায়ারিং করেছেন। তবে বড় মঞ্চে বড় দলগুলোর ম্যাচে আম্পায়ারিং করে নতুন কী যোগ হলো আপনার অভিজ্ঞতার ভান্ডারে?
মুকুল: নতুন অভিজ্ঞতা বলতে ওরা (খেলোয়াড়েরা) ক্রিকেটের বাইরে কোনো কথা বলে না। ওদের শারীরিক ভাষা পুরোটাই ক্রিকেটকেন্দ্রিক। তারা যেসব কথা বলে, অনেক বিনয়ের সঙ্গে বলে। তাদের কথায় একটা ভার থাকে। শারীরিক ভাষাটা অন্য রকম থাকে, সে যত বড় খেলোয়াড়ই হোক।

প্রশ্ন: সুনির্দিষ্টভাবে কী কী পার্থক্য চোখে পড়েছে?
মুকুল: অনেক পার্থক্য। যে পার্থক্য আমাদের ঘরোয়া ক্রিকেট আর আন্তর্জাতিক ক্রিকেটের…। এখানে প্রস্তুতি সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ। যত ভালো প্রস্তুতি নেবেন, তত ভালো করতে পারবেন। আম্পায়ারিং বল গোনা আর আউট, নট আউট দেওয়া নয়। অনেক মানসিক প্রস্তুতির ব্যাপার থাকে। একটা ম্যাচের আগে গড়ে ৮-১০ ঘণ্টা প্রস্তুতি নিতে হয়।

প্রশ্ন: এই পর্যায়ে নিয়মিত আম্পায়ারিং করতে বাংলাদেশের আম্পায়ারদের করণীয় কী?
মুকুল: অনেকে হয়তো ভাবছে, এশিয়া কাপের ফাইনালে আম্পায়ারিং করছি বলে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে চলে যাব, এলিট প্যানেলে যুক্ত হব। এটা একটা প্রক্রিয়ার মধ্য দিয়ে যেতে হয়। এক-দুই দিনের পারফরম্যান্সে চলে যাওয়ার আশা করা ভুল। আমাদের এই ধারাবাহিকতা ধরে রাখতে হবে। লম্বা সময় আমাদের ভালো আম্পায়ারিং করে যেতে হবে। তখন আমরা এমনি এলিট, ইমার্জিং প্যানেল বা বিশ্বকাপের মতো পর্যায়ে যেতে পারব।

প্রশ্ন: যে প্রক্রিয়াটার কথা বলছেন সেটির শুরু নিশ্চয়ই ঘরোয়া ক্রিকেট থেকেই হতে হবে?
মুকুল: নিজেদের ঘরে যত শক্তিশালী হবে, আন্তর্জাতিক পর্যায়ে তত আমরা ভালো করব, সন্দেহ নেই। সবচেয়ে বড় বিষয়, আমাদের প্রতি যে নেতিবাচক মনোভাব, এখান থেকে বেরোতে হবে। শুধু খেলোয়াড় নয়, দর্শক, সংবাদমাধ্যম—সবাইকেই বেরোতে হবে। সবাইকে ভাবতে হবে আমরা মানুষ। আমাদের ভুল হবে। তবে ভুলটা ইতিবাচকভাবে নিতে হবে। খেলোয়াড়দের

মতো আমাদেরও সমর্থন দরকার। আর সমর্থন তখনই পাব, যখন একটা পর্যায়ে পারফর্ম করতে পারব। এখন যেহেতু ভালো করছি, এই মুহূর্তে বোর্ড, সংবাদমাধ্যম বা সাধারণ মানুষ—সবারই সমর্থন দরকার। আর একটা অনুরোধ, আম্পায়াররা যে মানুষ, এটা যেন ভুলে না যাই। আমাদের ব্যাপারে একটু ইতিবাচক চিন্তা করলে আমাদের দেশ থেকে আরও বেশি ভালো

আম্পায়ার আসবে। আরেকটি বিষয়, একজন ছেলে যখন আম্পায়ারিংয়ে আসবে তার পরিবার আছে, ভবিষ্যৎ আছে। পেশাগত নিরাপত্তা, সামাজিক মর্যাদা যদি না থাকে এই পেশায় শিক্ষিত, প্রতিভাবান ছেলেরা আসবে না। সামাজিক ও অর্থনৈতিকভাবে আমাদের অবস্থান খুব একটা ভালো নয়। এই দুটো জায়গায় যদি নিশ্চিত করা যায়, আরও অনেক অনেক ভালো মানের আম্পায়ার আমাদের দেশ থেকে বেরিয়ে আসবে।

খবরটি শেয়ার করুন

এই বিভাগের আরো খবর
© All rights reserved © 2022 24hourskhobor.com
Site Customized By NewsTech.Com