1. Mijankhan298@gmail.com : Mijankhan :
  2. msthoney406@gmail.com : ২৪ ঘন্টা খবর : ২৪ ঘন্টা খবর
কোথায় হারিয়ে গেলো মুস্তাফিজের বোলিংয়ের ধার? রহস্য কি! - ২৪ ঘন্টা খেলার খবর!
সর্বশেষ:
এবার টাইগারদের বিশ্বকাপ জার্সি নিয়ে বিতর্ক সমালোচনার ঝড় সোশ্যাল মিডিয়ায় ব্রেকিং নিউজঃ নিউজিল্যান্ডে সৌম্য সরকারের সামনে এটাই শেষ সযোগ ’পাপন’ ব্রেকিং নিউজঃ বিসিবিকে দোষ দিয়ে বিদায় বেলা যে বিস্ফোরক বক্তব্য ছুড়ে দিলেন নাফিস ইকবাল পাকিস্তানকে হারানোর কৌশল জানা আছে রুমানার মাত্র পাওয়াঃ সাফজয়ী মাছুরা বাড়ি ফিরে পেলেন সংবর্ধনা-নগদ যত টাকা এশিয়া কাপে নিজেদের দ্বিতীয় ম্যাচে মুখোমুখি হওয়ার আগেই পাকবাহিনির বিরুদ্ধে রহস্যময় বক্তব্য রুমানার অবাক ক্রিকেটবিশ্ব, বাংলাদেশের ১ম ক্রিকেটার হিসেবে অবিশ্বাস্য এক রেকর্ড গড়তে চলেছে মৃত্যুঞ্জয় দাপুটে জয়ে শুরুতেই বাংলাদেশ-ভারতকে পেছনে ফেলল পাকিস্তান অবিশ্বাস্য হলেও সত্য আগামীকাল থাইল্যান্ডের বিপক্ষে এক সাথে মাঠে নামছে মা-মেয়ে, তোলপাড় সোশ্যাল মিডিয়া ত্রিদেশীয় সিরিজে মাঠে নামার আগেই, বুমরাহ-আফ্রিদিকে পিছনে ফেলে নতুন এক রেকর্ড গড়লেন মুস্তাফিজ

কোথায় হারিয়ে গেলো মুস্তাফিজের বোলিংয়ের ধার? রহস্য কি!

  • আপডেট করা হয়েছে: রবিবার, ৪ সেপ্টেম্বর, ২০২২
  • ৭১ বার পঠিত:

বেশ কিছুদিন ধরেই চেনা ফর্মে নেই মুস্তাফিজুর রহমান। মাঠের সাম্প্রতিক পারফরম্যান্স একদমই ছন্নছাড়া। নিজেকে যেন হারিয়ে খুঁজছেন ২৬ বছর বয়সী এই বাঁহাতি পেসার। একসময় নিজের মায়াবী কাটারে

ব্যাটারদের প্রতিনিয়তই নাকানিচোবানি খাওয়াতেন মুস্তাফিজ। তবে বর্তমান পরিস্থিতি ভিন্ন। আগুনে রুপের সেই মুস্তাফিজের দেখা এখন আর পাওয়া যাচ্ছে না মাঠে। বিশেষ করে দেশের বাইরের স্পোর্টিং অথবা ফ্ল্যাট

উইকেটে একদমই গড়পড়তা মুস্তাফিজের পারফরম্যান্স। এলোমেলো লাইন-লেন্থের বোলিংয়ের কারণে প্রচুর রান খরচ করছেন তিনি, যার ফলে ভুগতে হচ্ছে দলকেও। সদ্য সমাপ্ত

এশিয়া কাপের কথাই ধরা যাক। প্রথম ম্যাচে আফগানিস্তানের বিপক্ষে হাতের মুঠোয় থাকা ম্যাচ হেরেছে টাইগাররা। জয়ের জন্য শেষ ৪ ওভারে আফগানদের যখন দরকার ছিল ৪৩ রান,

ঠিক তখনই বোলিংয়ে আসেন মুস্তাফিজ। ১৭তম ওভারে তার করা ওভার থেকে ১৭ রান নেয় আফগানরা। পরবর্তীতে মোহাম্মদ সাইফুদ্দিনের ওভারে ২২ রান তুলে নিয়ে নিজেদের জয়ের পথ সুগম করে শেষপর্যন্ত জয়টাও তুলে নেয় আফগানিস্তান। পুরো

ম্যাচে ৩ ওভার বল করে ৩০ রান দিয়ে মুস্তাফিজ ছিলেন উইকেটশুন্য, সেই সাথে ম্যাচের গতিপথ বদলে দেওয়া সেই ১৭তম ওভার- হারের বড় কারণ হিসেবে তাই মুস্তাফিজের বোলিংকে কাঠগড়ায় তোলাই যায়। আরও একটি ম্যাচের কথা

আলাদা করে বলতেই হচ্ছে। গত বছরের টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে ম্যাচ। টসে জিতে বোলিং করতে নেমে শুরু থেকেই ক্যারিবিয়ানদেরকে বেশ চাপে রেখেছিল টাইগার বোলাররা। কমবেশি সবাই কিপটে

বোলিংয়ের পাশপাশি উইকেটও তুলে নিচ্ছিলেন নিয়মিত বিরতিতে। তবে মুস্তাফিজ যেন সাজিয়ে বসেছিলেন খরুচে বোলিংয়ের পসরা। ৪ ওভার বল করে ২ উইকেট তুলে নিলেও রান দিয়েছিলেন ৪৩! বিশেষ করে তার করা ইনিংসের শেষ ওভারে ১৯ রান

তুলে নেয় ওয়েস্ট ইন্ডিজ, যা ছিল বেশ হতাশাজনক। ১৪৩ রানের টার্গেটে ব্যাট করতে নেমে শেষপর্যন্ত ১৩৯ রানে থামে বাংলাদেশের ইনিংস, ম্যাচ হারে ৩ রানে। এবার একটু পরিসংখ্যানে

চোখ বুলিয়ে নেওয়া যাক। গত কয়েক বছর ধরেই দেশের বাইরে মুস্তাফিজের পারফরম্যান্স হতাশাজনক। পরিসংখ্যানেও ফুটে উঠছে সেই চিত্র। ২০১৮-২২ এই সময়ের মধ্যে দেশের বাইরে ২৯ ইনিংসে

বোলিং করে তিনি উইকেট নিয়েছেন ৩২টি। এই সময়ে তার বোলিং গড় ৩০ এর চেয়েও বেশি, ৩০.১৮! ইকোনমি রেটটাও কোনোভাবেই ‘মুস্তাফিজসুলভ’ নয়, ৯.৩৯! অন্যদিকে তার ক্যারিয়ার বোলিং গড় ২১.০৬ এবং ইকোনমি রেট ৭.৭৩।

একসময় দেশের বোলিং আক্রমণের সবচেয়ে ধারালো অস্ত্র মুস্তাফিজই দেশের বাইরে গেলে হয়ে যাচ্ছেন ভোতা, পরিসংখ্যানেও সেই ছাপ স্পষ্ট। ২০১৮ সালের বিদেশের মাটিতে মুস্তাফিজের ইকোনমি রেট ছিল ৯.৪৬। ২০১৯ সালে

তা ছিল ৯.৫১, পরের বছর তা গিয়ে দাঁড়ায় ৯.৮৫ এ। ২০২১ এবং ২২ এ তা ছিল যথাক্রমে ৯.৪০ এবং ৯.১২। ক্রমশই বিদেশের মাটিতে রান খরুচে একজন বোলার হয়ে যাচ্ছেন মুস্তাফিজ, যা স্পষ্ট তার ইকোনমি রেটে। বিদেশের মাঠে এরকম বহুবার

দলকে ডুবিয়েছেন মুস্তাফিজ। বোলিং এর ধার কমে যাওয়ার মূল কারণ অবশ্যই বৈচিত্র্যের অভাব। তার বিশেষ ডেলিভারি ‘কাটার’ দেশের ধীর গতির উইকেটে কার্যকর হলেও বিদেশের স্পোর্টিং উইকেটে ততটা

কার্যকর নয়। ব্যাটাররা তাই সহজেই পড়ে ফেলতে পারছেন তাকে। অন্যদিকে বোলিংয়ে কাটার বাদে আর তেমন কোনো বিশেষ অস্ত্র না থাকায় তালগোল পাকিয়ে ফেলছেন মুস্তাফিজ। তাই একসময় তার বোলিং দুর্বোধ্য থাকলেও সময়ের সাথে সাথে

তা হয়ে যাচ্ছে অনেক বেশি সহজবোধ্য, যা খরুচে বোলিংয়ের বড় কারণ। অধিনায়করা মুস্তাফিজকে দলের পেস বোলিংয়ের সেরা অস্ত্র বলেই মনে করেন। সে কারণে ভরসাটাও তার ওপরেই বেশি রাখেন সবাই। তবে সেই আস্থার প্রতিদান মুস্তাফিজ কতটা দিতে পারছেন তা গভীরভাবে চিন্তা করার সময়টা হয়ত

এসে গেছে। দলের সেরা বোলার যদি দিনের পর দিন এভাবে হতাশ করে যান তাহলে সেই প্রভাব দলের ওপর বেশ ভালোভাবেই পড়ে। আর মুস্তাফিজের এমন হতাশাজনক পারফরম্যান্স দলকে তো ডোবাচ্ছেই সেই সাথে তার নিজের ক্যারিয়ারের জন্যও

ভালো কিছু বয়ে আনছে না। এমন পরিস্থিতি থেকে উত্তরণের পথটাও তাই মুস্তাফিজকেই খুঁজে বের করতে হবে এবং তাও দ্রুততম সময়ের মধ্যেই। দেশের লাখো কোটি ক্রিকেট ভক্ত তো আশাভরা চোখ নিয়ে মুস্তাফিজদের দিকেই তাকিয়ে থাকেন!

খবরটি শেয়ার করুন

এই বিভাগের আরো খবর
© All rights reserved © 2022 24hourskhobor.com
Site Customized By NewsTech.Com